Blog

প্রতিবেদন-২, বাংলাদেশে ধারাবাহিক মূর্তি ভাংচুরের শরৎকাল চলছে!

তথাকথিত অসাম্প্রদায়িক চেতনার আড়ালে প্রায় প্রতিদিনই দেশের বিভিন্ন জেলায় মূর্তি ভাংচুরের ঘটনা ঘটেই চলেছে। আসন্ন দুর্গাপূজাকে সামনে রেখে দূর্বৃত্ত নামক চেনাজানা লোকেরাই নির্লজ্জের মতো এই ধরনের জঘন্য ঘটনা ঘটিয়েই যাচ্ছে। সরকার নির্বিকার! যদি কেউ কথনো ধরা পড়ে যায় তবে তাকে ছাড়ানোর জন্য রয়েছে বিশেষ দাওয়াই-“মানসিক রোগী বলে চালিয়ে দেওয়া“।

*** মন্দির ভাঙচুর ও শ্মশান দখলের চেষ্টা রাঙ্গুনিয়ায়, মামলায় গড়িমসি পুলিশের। আওয়ামী লীগের নাম ভাঙিয়ে রাঙ্গুনিয়ার ধামাইরহাট এলাকায় রাতের আঁধারে সংখ্যালঘুদের মন্দির ভাঙচুর করেছে একটি চক্র। এ সময় তারা শ্মশান দখলের চেষ্টাও চালায়। তবে স্থানীয়দের প্রতিরোধের মুখে পালিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ কয়েকশত লোক রাঙ্গুনিয়া থানায় সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত অবস্থান করলেও জড়িতরা প্রভাবশালী হওয়ায় মামলা নেয়নি পুলিশ। রাঙ্গুনিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ নিয়ে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মধ্যে আতংক ও ক্ষোভ বিরাজ করছে। (চট্রগ্রাম প্রতিদিন, ১৬ ই সেপ্টেম্বর ২০১৯)
রাঙ্গুনিয়ার
রাঙ্গুনিয়ার ধামাইরহাট

*** প্রকাশ্য দিবালোকে লাঠিসোটা ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে দুর্গা মণ্ডপ ও বাড়িঘর ভাংচুর।জমি নিয়ে বিরোধের জেরে প্রকাশ্য দিবালোকে লাঠিসোটা এবং ধারালো অস্ত্র নিয়ে দুর্গা মণ্ডপ ও বাড়িঘরে হামলা ও ভাংচুর।  আদালতে বিচারাধীন মামলার রায়ের ধৈর্য নেই মুসলিম দুর্বৃত্তদের বলেন রনজিৎ চন্দ্র কর্মকার। শনিবার সকালে গাইবান্ধা জেলার সদর উপজেলার ভবানীপুর কামারপাড়া গ্রামে শারদীয় দুর্গাপূজা মণ্ডপে ভাঙচুর করেছে দুর্বৃত্তরা। সাহাপাড়া ইউনিয়নের রণজিৎ চন্দ্র কর্মকারের বাড়ি সংলগ্ন দুর্গাপূজা মণ্ডপে এ ঘটনা ঘটে। রনজিৎ চন্দ্র কর্মকার বলেন দীর্ঘদিন ধরে তার (রনজিৎ চন্দ্র কর্মকার) সঙ্গে একই গ্রামের আব্দুল আউয়াল ও আব্দুল মান্নানের জমি নিয়ে বিরোধ চলছে। এ নিয়ে আদালতে মামলা বিচারাধীন অবস্থায় রয়েছে। এরই জের ধরে শনিবার প্রকাশ্যে লাঠিসোটা এবং ধারালো অস্ত্র নিয়ে আব্দুল আউয়াল ও আব্দুল মান্নানের নেতৃত্বে একদল মুসলিম যুবক তার বাড়ি সংলগ্ন দুর্গা মণ্ডপ ও তার বাড়িঘরে হামলা করে ও ইচ্ছা মত ভাংচুর করে। তারা মণ্ডপের সমস্ত মূর্তি ও বাড়ির আসবাবপত্র ভেঙ্গে ফেলে। (দি নিউজ, ১৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯)

গাইবান্ধা জেলার ঘটনা
গাইবান্ধা জেলার ঘটনা
*** পঞ্চগড়ে কালীমন্দিরের প্রতিমা ভাঙচুর। পঞ্চগড়ে কালীমন্দির থেকে দুটি প্রতিমার মাথা ভেঙে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে। শুক্রবার (১৩ সেপ্টেম্বর) সদর উপজেলার মাগুড়া ইউনিয়নের গেদিপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। জানা গেছে, সকালে ভক্তরা পূজার জন্য গিয়ে দেখেন শিব ও কালী প্রতিমার মাথা ভেঙে মন্দিরের বাইরে ফেলে রাখা হয়েছে। মাথা দুটোও সেখানে ছিল না। স্থানীয়দের ধারণা, রাতের কোনো এক সময়ে এ ঘটনা ঘটানো হয়েছে। খবর পেয়ে লোকজন ঘটনাস্থলে ভিড় করে। (দৈনিক জাগরণ, ১৩ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯) *** সাতক্ষীরায় নির্মাণাধীন দুর্গা প্রতিমা ভাঙচুর। দুর্বত্তরা রাতের আঁধারে নির্মাণাধীন দুর্গা প্রতিমা ভাঙচুর করেছে। মঙ্গলবার গভীর রাতে পুরাতন সাতক্ষীরার ঘোষপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। এ ছাড়া ইতিপূর্বে আশাশুনির কল্যাণপুর, কচুয়া, দেবহাটার পুটিমারি, সদরের বাবুলিয়া, শহরেরর ঝুটিতলা, শ্যামনগরের কৈখালিসহ বিভিন্ন মণ্ডপে যেসব প্রতিমা ভাঙচুর হয়েছে সেসব ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের কারো বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হয়নি। ফলে মঙ্গলবার রাতে আবারো পুরাতন সাতক্ষীরায় দুর্গা প্রতিমা ভাঙচুরের ঘটনা ঘটলো। (উত্তরাধিকার নিউজ, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৯) *** গলাচিপায় দূর্গা মন্দির উচ্ছেদ প্রতিমা নিয়ে বিপাকে মন্দির কমিটি। পটুয়াখালীর গলাচিপায় সরকারি খাস জায়গায় স্থাপিত একটি দূর্গা মন্দির উচ্ছেদ করা হয়েছে। সোম বার বিকালে উপজেলার আমখোলা ইউনিয়নের ভাংরা গ্রামের রমেশ চন্দ্র দাসের বাড়ীতে স্থাপিত ওই দূর্গা মন্দিরটি উচ্ছেদ করা হয়। উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো: সুহৃদ সালেহীন।মন্দির কমিটির সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব চন্দ্র শীল জানান, আমরা এ জায়গায় মন্দির স্থাপন করে দূর্গা প্রতিমা তৈরি করে আসছি। আমাদের প্রতিমা তৈরির কাজ প্রায় শেষের দিকে। হঠাৎ করে সোমবার বিকালে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো: সুহৃদ সালেহীন এর  নেতৃত্বে আমাদের টিন সেটের তৈরি মন্দিরটি ভেঙ্গে দেয়া হয়। এতে প্রতিমা নিয়ে এখন আমরা বিপাকে আছি।উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো: সুহৃদ সালেহীন জানান, মন্দিরটি সরকারি খাস জায়গায় থাকার কারনে আমরা মন্দিরটি উচ্ছেদ করতে বাধ্য হয়েছি।  উল্লখ্য যে, বাংলাদেশে সরকারি খাস জায়গায় অসংখ্য মসজিদ রয়েছে কিন্তু সরকার এগুলো উচ্ছেদ করছে না। (পটুয়াখালী প্রতিদিন, ২১ শে আগস্ট, ২০১৯ইং)
গলাচিপায় দূর্গা মন্দির উচ্ছেদ
গলাচিপায় দূর্গা মন্দির উচ্ছেদ
*** গাজীপুরে প্রতিমা ভাঙচুর। গাজীপুর সদর উপজেলার ভাওয়ালগড় ইউনিয়নের মনিপুর এলাকায় মন্দিরের প্রতিমা ভেঙেছে দুর্বৃত্তরা। গতরাতে এ ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। জানা যায়, মনিপুর উত্তর পাড়া সার্ব্বজনীন দুর্গা মন্দিরে আসন্ন পূজার জন্য তৈরি করা হয়েছিলো এসব প্রতিমা। রাত ১টা পর্যন্ত সেখানে কীর্তন অনুষ্ঠান চলে। অনুষ্ঠান শেষে সবাই বাড়ি চলে যায়। সকালে প্রতিমার মাথা ভাঙা দেখতে পায় এলাকাবাসী। (নাগরিক বার্তা, ৯ ই সেপ্টেম্বর ২০১৯)।
গাজীপুর জেলার ঘটনা
গাজীপুর জেলার ঘটনা
বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের ভিত্তিতে এই প্রতিবেদন টি তৈরি করেছেন, ওয়ার্ল্ড হিন্দু স্ট্রাগল কমিটির প্রধান মিডিয়া সমন্বয়ক নিহার রঞ্জন বিশ্বাস।  
%d bloggers like this: