Contemporary Discussion

Nepal Should Be Declared Hindu State: BJP Leader Dr. Swamy.

Influential leader of Ruling Bharatiya Janta Party and member of Lok Sabha Dr. Subramanian Swamy has demanded to declare Nepal Hindu State. Addressing two day international conference in Kathmandu, Dr. Swamy said that due to its geography and history, India and China are also positive to make Nepal Hindu State. Jointly organized by World Hindu Association and World Hindu Federation, Dr. Swamy has left Nepal following addressing two day conference. He also paid a courtesy call to Prime Minister K.P. Sharma Oli at his residence Baluwatar. He discussed the matter of mutual interest with Prime Minister Oli. Another BJP leader and former member of Lok Sabha Tarun Bijaya, who is regarded as strong Hindu leader, also separately met prime minister Oli. Bijaya is in favor of declaring Nepal as Hindu State reports Deshsanchar. Source:.spotlightnepal.com

Bangladeshi media: Prominent Muslim human rights activist arrested.

Aslam Chowdhury, a prominent Muslim minority and human rights activist who also serves as the BNP Central Joint Secretary General in Bangladesh, was displayed arrested recently in the Bangladeshi media and is presently in jail after being disqualified from running in the elections later this month. According to the report, the Police surrounded his home for three hours when a meeting was being held there and 25 leaders were arrested. Later on, Mr. Chowdhury revealed that he was not arrested but his elder brother Nizam Uddin Chowdhury and 17 other members of his political team were. This incident came after the Bangladeshi Election Committee cleared Mr. Chowdhury to run for Chattogram 4 in the upcoming elections. Mendi Safadi, who presently heads the Safadi Center for International Diplomacy, Research, Public Relations and Human Rights, heavily criticized the incident: “When the election committee prevents Aslam Chowdhury and other opposition politicians from running for elections, in order to increase the chances of winning the elections, under international law, this is equivalent to falsifying elections. This is the conduct of an unfit election campaign and we will consider our actions in this case.” “It is not enough that the government announced without warning in mid-November that the elections would be held at the end of December, and immediately afterwards, there was an unprecedented wave of arrests of tens of thousands of political activists, which was carried out to rig the election results in favor of the corrupt Sheikh Hasina government,” Safadi proclaimed, noting that 15,000 opposition activists were recently arrested and most of the detained are Hindus. “She refuses to face popular candidates from the opposition and this goes against any democratic value.” Safadi declared in response: “We will turn to the United Nations and the European Parliament in the coming days and submit a special report to each of the parliaments in Europe, the Kremlin and the US Congress in order to give protection to the opposition in Bangladesh so that opposition candidates will be able to vote and to be elected transparently and legally.” A couple of years ago, Chowdhury was arrested after meeting with Safadi, who formerly served as Ayoob Kara’s chief of staff. The Bangladeshi government alleged that he was part of an Israeli plot to topple the Bangladeshi government but Safadi related that the real reason he was arrested was due to his role in the country’s opposition. Bangladesh has no diplomatic relations with Israel and Bangladeshi citizens are barred from visiting the Jewish state. According to the Gatestone Institute, during every Friday sermon, the Jewish people are cursed from more than 250,000 mosques in the country. In addition, Sheikh Hasina declared that Bangladesh is an Islamic state: “Anyone who pronounces offensive statements against it or against the Prophet Muhammed will be prosecuted according to the law.” by Rachel Avraham  |  on December 11th, 2018 News source: foreignpolicyblogs.com

Priya Saha: A Courageous Bangladeshi Hindu Woman of Valor.

Dictatorial regimes usually like to bully small ordinary people into submission.  They think just because they have absolute power that they will succeed against the underdog.  However, famous American writer Mark Twain once wrote, “It’s not the size of the dog in the fight.  It is the size of the fight in the dog.”  In other words, one does not need to be big and powerful in order to be a heroine.  One only needs to have the courage and determination to stand up to a mighty adversary in order to be victorious.   Bangladeshi Hindu activist Priya Saha has proved this point in recent days.   Last March of this year, the home of Priya Saha, a Bangladeshi Hindu woman, was burnt to the ground.  Her lands were subsequently occupied by radical Muslims.   Following this tragic incident, instead of crying in silence over her fate, Saha visited the White House and appealed to US President Donald Trump at the Oval Office regarding her plight and that of other Hindus within Bangladesh.  In retaliation, the Bangladeshi government accused her of sedition and filed a number of legal cases against her.  So far, some of these cases have been dismissed.  Others are awaiting a decision.   Numerous Bangladeshi media outlets have also slandered her name. Furthermore, Sajeeb Wazeed, the son of Prime Minister Sheikh Hasina, declared that the US Embassy in Dhaka chose her to speak as part of a delegation merely so she could make outrageous statements: “The only logical outcome of making such a claim to the US President is to build demand for a military intervention in the region on humanitarian grounds. This ties in with another US Congressman’s recent statement that Bangladesh should take over Rakhine state. It is no secret that the US Embassy is decidedly anti-Awami League. With their support of Priya Saha’s statement, they now appear to be plotting a direct takeover of our country.” So many powerful people in Bangladesh are ganging up on Priya Saha due to her courageous stance.  However, because she believes that justice is on her side, she is determined to stand up to the Sheikh Hasina government and to defend her right to live peacefully in her home in the international arena.   Shanti Datta, President of Shiv Sena of West Bengal, India and Pradip Ghosh, Secretary General of Shiv Sena of West Bengal, India and President of the West Bengal Region of the World Hindu Struggle Committee, related that all of Saha’s statements to US President Donald Trump are 100 percent true and that they will always be on the side of Priya Saha.  Every day, the Hindu community of Bangladesh is suffering.   Congressman Bob Dold said in the US Congress that “since 1947, 4.9 million Hindus have disappeared from Bangladesh. Hindus are being tortured. Dangerous incidents of murder, rape, abduction, physical abuse and the destruction of the temples are happening every day in Bangladesh.” In 2016, Professor Abul Barkat of the Economics Department at the University of Dhaka wrote in his book ‘The Political Economy of Reforming Agriculture – Land-Water Bodies in Bangladesh’, 626 Bangladeshi Hindus are leaving the country on average daily. According to him, if this situation continues, the Hindu religion will not exist within the country within three decades. According to the research performed by Dr. Subodh […]

Discriminatory budget, minorities are deprived!

Minority community people say that in the year 2019-20 fiscal year, the minority community has been discriminated against in the national budget and through this budget, the Awami League government has clearly displayed their communal character in front of the public.431 crore taka for the construction of the mosque in the ongoing budget but there is no allocation for the construction of temples, churches and pagodas.In the year 2019-20, a total of Tk 431 crore seven lakhs have been allocated for setting up 560 model mosques and cultural centers in the district and upazilas, but there is no budget allocation for setting up temples, pagodas, churches and cultural centers for Hindu, Buddhist and Christian communities.The budget of the Ministry of Religions in the budget of this fiscal year 1 thousand 337 crore and 92 lakhs takas. In which development budget of 1074.47 crore Takas. In the development budget, Tk 1009 crore and 15 lakhs Taka will be spent only on the Islamic Foundation and Islamic Religious Project.According to the constitution’s promise, the state is committed to see all citizens equally regardless of caste. In the Ministry of Religions, the per capita allocation of the majority of the population, from 11 to 12 taka, per capita allocation of minority population is only 3 taka.This year, the government has announced an allocation of Tk 380 crore for child education and mass education programs for mosque-based children. Of which only 65 crore has been announced for minorities. 62 crore taka in temple based children and mass education program and only 3 crore taka in pre-primary education based on Pagoda. In the non-implementation budget, only 2% of the total amount of money is reserved for the minorities in the amount of 263 crores 65 lakhs. Although, in the fiscal year 2018-19, the budget allocated 171 crore 53 lakh taka, but the budget of this year is only 70.54 crore taka.. Proportional rate was 11% in the last year, but in the present budget only 5 % for minorities. There is no allocation for pilgrimage for Hindus, Buddhists and Christians, although there is an allocation of Rs 69.75 crore for Muslims for Hajj. There is 1.46 crore taka allocation for the national Baitul Mukarram Mosque but no any allocation money for Hindu-Buddhist-Christian central worship, in this budget. In order to run special activities, the proposal for allocation of 23 crore and 2 lakhs taka for the Imam Training Academy, but there is no such allocation for Hindus, Buddhists and Christians.Report by: Nihar Ranjan Biswas, chief media coordinator of World Hindu Struggle Committee.

বৈষম্যমূলক বাজেট, সংখ্যালঘুরা বঞ্চিত!

সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের লোকজন বলছে ২০১৯-২০ অর্থ বছরের জাতীয় বাজেটে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের সাথে চরম বৈষম্যমূলক আচরন করা হয়েছে এবং এই বাজেটের মাধ্যমে আওয়ামী লীগ সরকার তার সাম্প্রদায়িক চেহারাটা জনগনের সামনে পরিস্কার ভাবে উপস্থাপন করেছেন। চলমান বাজেটে মসজিদ নির্মাণের জন্য বরাদ্দ রাখা হয়েছে ৪৩১ কোটি টাকা, মন্দির, গির্জা ও প্যাগোডা নির্মাণে কোন বরাদ্দ নেই। ২০১৯-২০ অর্থ বছরে জেলা ও উপজেলায় ৫৬০টি মডেল মসজিদ ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্র স্থাপনে ৪৩১ কোটি সাত লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে অথচ হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিষ্টিয়ান সম্প্রদায়ের জন্য মন্দির, প্যাগোডা, গির্জা ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্র স্থাপনে বাজেটে কোন বরাদ্দ নেই। এবারের অর্থবছরে প্রস্তাবিত বাজেটে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের বাজেট ১ হাজার ৩৩৭ কোটি ৯২ লাখ টাকা। যার মধ্যে উন্নয়ন বাজেট ১০৭৪.৪৭ কোটি টাকা। উন্নয়ন বাজেটে ১০০৯ কোটি ১৫ লাখ টাকা শুধুমাত্র ইসলামিক ফাউন্ডেশন ও ইসলাম ধর্ম বিষয়ক প্রকল্পে ব্যয় করা হবে। সংবিধানের অঙ্গীকার অনুযায়ী ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সব নাগরিককে সমভাবে দেখতে রাষ্ট্র প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। এবারের ধর্ম মন্ত্রণালয় বাজেটে সংখ্যাগুরু জনগোষ্ঠীর মাথাপিছু বরাদ্দ যেখানে ১১ থেকে ১২ টাকা, সেখানে সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠির মাথাপিছু বরাদ্দ মাত্র ৩ টাকা। এবারের অর্থ বছরে মসজিদভিত্তিক শিশু শিক্ষা ও গণশিক্ষা কার্যক্রমের জন্য ৩৮০ কোটি টাকা বরাদ্দ ঘোষণা করা হয়েছে। যার মধ্যে মাত্র ৬৫ কোটি টাকা সংখ্যালঘুদের জন্য ঘোষণা করা হয়েছে। মন্দির ভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রমে ৬২ কোটি টাকা ও প্যাগোডাভিত্তিক প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষায় ৩ কোটি টাকা। অনুন্নয়ন বাজেটে ২৬৩ কোটি ৬৫ লাখ টাকার মধ্যে সংখ্যালঘুদের জন্য মাত্র ২ ভাগ বরাদ্দ রাখা হয়েছে। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ১৭১ কোটি ৫৩ লাখ টাকা বরাদ্দ থাকলেও এবারের বাজেটে টাকার অঙ্ক মাত্র ৭০.৫৪ কোটি টাকা। আনুপাতিক হার গতবার ১১ ভাগ থাকলেও এবার সংখ্যালঘুদের জন্য রয়েছে মাত্র ৫ ভাগ। মুসলিমদের জন্য হজ বিষয়কের জন্য ৬৯.৭৫ কোটি টাকা বরাদ্দ থাকলেও হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টানদের জন্য তীর্থ ভ্রমনের জন্য কোন বরাদ্দ নেই। এবারের বাজেটে বায়তুল মোকাররম মসজিদের জন্য ১.৪৬ কোটি টাকা বরাদ্দ থাকলেও হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টানদের কেন্দ্রীয় উপাসনালয়ে কোন বরাদ্দ রাখা হয়নি। বিশেষ কার্যক্রমে চালানোর জন্য ইমাম প্রশিক্ষণ একাডেমির জন্য ২৩ কোটি ২ লাখ টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব রাখা হয়েছে কিন্তু হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রীষ্টানদের জন্য এ ধরণের কোন বরাদ্দ রাখা হয়নি। নিহার রঞ্জন বিশ্বাস, প্রধান গণমাধ্যম সমন্বয়ক, ওয়ার্ল্ড হিন্দু স্ট্রাগল কমিটি।

যোগ (YOGA) ও যোগের ইতিহাস

ভারতীয় উপমহাদেশে হিন্দুধর্ম ও দর্শনের একটি ঐতিহ্যবাহী শারীরবৃত্তীয় ও মানসিক সাধনপ্রণালী। “যোগ” শব্দটি পরে হিন্দু ছাড়াও বৌদ্ধ ও জৈনধর্মের ধ্যানপ্রণালীতে একীভূত হয়েছে। বর্তমানে এটি সমগ্রবিশ্বে সকল ধর্মের মানুষ পালন করে থাকে। হিন্দু দর্শনে যোগের প্রধান শাখাগুলি হল রাজযোগ, কর্মযোগ, জ্ঞানযোগ, ভক্তিযোগ ও হঠযোগ। যোগের মূল হিন্দুধর্মের কোথায় বা কে এর প্রবর্তক তা সঠিক নির্ণয় খুব কঠিন, কেননা হিন্দুধর্মের প্রাচীনত্বের সাথে ওতপ্রোত জড়িয়ে আছে যোগ। দেবাদিদেব মহাদেবকে সর্বশ্রেষ্ঠ যোগী বলা হয়। মহর্ষি পতঞ্জলি আনুষ্ঠানিকভাবে যোগদর্শনের কাঠামোগত রূপ দেন। পতঞ্জলির যোগসূত্রে যে যোগের উল্লেখ আছে, তা হিন্দু দর্শনের ছয়টি প্রধান শাখার অন্যতম (অন্যান্য শাখাগুলি হলো কপিলের সাংখ্য, গৌতমের ন্যায়, কণাদের বৈশেষিক, জৈমিনীর পূর্ব মীমাংসা ও বাদরায়ানের উত্তর মীমাংসা বা বেদান্ত)। অন্যান্য যেসব হিন্দু শাস্ত্রগ্রন্থে যোগ সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে সেগুলি হলো উপনিষদ্, ভগবদ্গীতা, হঠযোগ প্রদীপিকা, শিব সংহিতা, বিভিন্ন পুরাণ ও বিভিন্ন তন্ত্রগ্রন্থ। যোগ ইতিহাসের প্রাচীনত্ব অন্তত ৫০০০ বছর বা তারও অধিক। সংস্কৃত “যোগ” শব্দটির একাধিক অর্থ রয়েছে। এটি সংস্কৃত “যুজ” ধাতু থেকে ব্যুৎপন্ন, যার অর্থ “নিয়ন্ত্রণ করা”, “যুক্ত করা” বা “ঐক্যবদ্ধ করা”। “যোগ” শব্দটির আক্ষরিক অর্থ তাই “যুক্ত করা”, “ঐক্যবদ্ধ করা”, “সংযোগ” বা “পদ্ধতি”। যিনি যোগ অনুশীলন করেন বা দক্ষতার সহিত উচ্চমার্গের যোগ দর্শন অনুসরণ করেন, তাঁকে যোগী বা যোগিনী বলা হয়। পতঞ্জলি তাঁর সাধনপাদের দ্বিতীয় সূত্রে যোগের যে সংজ্ঞা দিয়েছেন, সেটিকেই তাঁর সমগ্র গ্রন্থের সংজ্ঞামূলক সূত্র মনে করা হয়: যোগশ্চিত্তবৃত্তিনিরোধঃ।। যোগসূত্র ১.২ অর্থাৎ “যোগ হল মনের (“চিত্ত”) পরিবর্তন (“বৃত্তি”) নিবৃত্তি (“নিরোধ”)। অর্থাৎ চিত্তকে বিভিন্ন প্রকার বৃত্তি বা পরিণাম গ্রহণ করিতে না দেওয়াই যোগ। স্বামী বিবেকানন্দ এই সূত্রটির ইংরেজি অনুবাদ করেছেন, “Yoga is restraining the mind-stuff (Citta) from taking various forms (Vrittis).” স্বামী বিবেকানন্দ একে আরও উদাহরণের সাথে স্পষ্ট করেছেন তাঁর পাতঞ্জল যোগসূত্রে- মানুষ ঘুমিয়ে চক্ষু খুলে রাখলেও তার দর্শনের অনুভূতি হয় না। অর্থাৎ চক্ষুর সাথে চিত্তেরও সম্পর্ক থাকা বাঞ্ছনীয়। আবার তিনি বলেছেন- ‘আমরা হ্রদের তলদেশ দেখিতে পাই না, কারণ উহার উপরিভাগ ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র তরঙ্গে আবৃত। যখন তরঙ্গগুলি শান্ত হয়, জল স্থির হইয়া যায়, তখনই কেবল উহার তলদেশের ক্ষণিক দর্শন পাওয়া সম্ভব। যদি জল ঘোলা থাকে বা উহা ক্রমাগত নাড়িতে থাকে, তাহা হইলে উহার তলদেশ কখনই দেখা যাইবে না। যদি উহা নির্মল থাকে, এবং উহাতে একটিও তরঙ্গ না থাকে, তবেই আমরা উহার তলদেশ দেখিতে পাইব।.. যিনি মনের এই তরঙ্গগুলি নিজের আয়ত্তে আনিতে পারিয়াছেন, তিনিই শান্ত পুরুষ’। সমাধিপাদের ২৯ সূত্রের ব্যাখ্যায় বিবেকানন্দ বলেছেন- ‘ক্রমাগত জপ ও চিন্তার ফল অনুভব করিবে- অন্তর্দৃষ্টি ক্রমশঃ বিকশিত হইতেছে এবং মানসিক ও শারীরিক যোগবিঘ্নসমূহ দূরীভূত হইতেছে’। এই কথাগুলোই কোয়ান্টাম নিজেদের মতো করে চালাচ্ছে অথচ তা বহু আগের কথা ও আমাদেরই কথা। বৈদিক সংহিতায় তপস্বীদের উল্লেখ থাকলেও, তপস্যার (তপঃ) স্পষ্ট উল্লেখ পাওয়া যায় বৈদিক ব্রাহ্মণ গ্রন্থে। সিন্ধু সভ্যতার (৩৩০০ খ্রিষ্টপূর্বাব্দ) বিভিন্ন প্রত্নস্থলে পাওয়া সিলমোহরে ধ্যানাসনে উপবিষ্ট ব্যক্তির ছবি পাওয়া গেছে। ধ্যানের মাধ্যমে চেতনার সর্বোচ্চ স্তরে উন্নীত হওয়ার পদ্ধতি হিন্দুধর্মের বৈদিক ধারায় বর্ণিত হয়েছে। নাসাদীয় সূক্ত এবং ঋগ্বৈদিক যুগেও ধ্যানপ্রণালীর অস্তিত্বের প্রমাণ মেলে। “যোগ” শব্দটি প্রথম উল্লিখিত হয়েছে কঠোপনিষদে। উক্ত গ্রন্থে “যোগ” শব্দটির অর্থ ইন্দ্রিয় সংযোগ ও মানসিক প্রবৃত্তিগুলির উপর নিয়ন্ত্রণ স্থাপনের মাধ্যমে চেতনার সর্বোচ্চ স্তরে উন্নীত হওয়া। যোগ ধারণার বিবর্তন যে সকল গ্রন্থে বিধৃত হয়েছে, imagesসেগুলি হল উপনিষদসমূহ, মহাভারত, (ভগবদ্গীতা) ও পতঞ্জলির যোগসূত্র । যোগের উল্লেখ শ্বেতাশ্বতর উপনিষদেও আছে। হিন্দু দর্শনে যোগ ছয়টি মূল দার্শনিক শাখার একটি। যোগ শাখাটি সাংখ্য শাখাটির সঙ্গে ওতোপ্রতোভাবে জড়িত। পতঞ্জলি বর্ণিত যোগদর্শন সাংখ্য দর্শনের মনস্তত্ত্ব, সৃষ্টি ও জ্ঞান-সংক্রান্ত দর্শন তত্ত্বকে গ্রহণ করলেও, সাংখ্য দর্শনের তুলনায় পতঞ্জলির যোগদর্শন অনেক বেশি ঈশ্বরমুখী। পতঞ্জলি আনুষ্ঠানিক যোগ দর্শনের প্রতিষ্ঠাতা। তিনি খ্রিস্টপূর্ব দ্বিতীয় শতকের লোক। যোগসূত্রের সংকলক তিনি। পতঞ্জলির যোগ, যা মনকে নিয়ন্ত্রণ করার একটি উপায়, তাকে রাজযোগ নামে […]

হিন্দু অধিকার নিয়ে কথা বলতে এত আপত্তি কেন ? শিপন কুমার বসু।

আমরা জানি যে জেরুজালেম হচ্ছে ইহুদীদের পবিত্র ধর্মীয় স্থান। জেরুজালেম শহরের পিছনে রয়েছে ৩,০০০ বছরের মহাকাব্যিক ইতিহাস। এ পর্যন্ত ৫২ বার আক্রান্ত হয়েছে জেরুজালেম। অবরোধ, দখল ও পুনরুদ্ধার হয়েছে ৪৪ বার। ঘেরাও করা হয়েছে ২৩ বার এবং ধ্বংস করা হয়েছে ২ বার। ১৯৪৮ সালে ইসরায়েলের পত্তনের পর বিশ্বের প্রথম রাষ্ট্র হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। বিশ্বের প্রভাবশালী দেশ গুলো জেরুজালেম শহরটিকে ইসরায়েলের বলে স্বীকৃতি দিলেও ফিলিস্তিনিরা জেরুজালেমরে দাবী থেকে সরে আসেনি, কারণ মুসলিম অধ্যুষিত দেশ গুলো বছরের পর বছর ফিলিস্তিনিদের উস্কানি দিয়ে যাচ্ছে। সম্প্রতি ওআইসি সম্মেলনে ৭০ টি মুসলিম দেশের সরকার জেরুজালেম নিয়ে ফিলিস্তিনিদের পক্ষে বিবৃতি দিয়েছে, তাদের মধ্যে বাংলাদেশের হাসিনাও ছিল।২০১৬ সালের তথ্য অনুযায়ী ফিলিস্তিনে ৪৮.২ লাখ জনসংখ্যার বসবাস। এই অল্প সংখ্যক মানুষের জন্য ৭০ টি মুসলিম দেশ ঐক্যবদ্দ হয়ে বিবৃতি দেয়, পাশাপাশি কিছু অমুসলিম দেশও তাদের মদদ যোগায়। আবার এদিকে বাংলাদেশে শরনার্থী হিসাবে বসবাস করা মাত্র ১০ লাখ রোহিঙ্গার জন্য বিশ্ব সম্প্রদায় বার বার মিটিং করে, রোহিঙ্গাদের নিয়ে জাতিসংঘেও মিটিং হয়েছে, ইউরোপ, আমরিকাতেও মিটিং হয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশের ৩০ মিলিয়ন ও বাংলাদেশ থেকে বিতাড়িত ৫০.৫ মিলিয়ন (ভারতে উদ্বাস্তু হিসাবে বসবাসরত) হিন্দুদের জন্য আজ পর্যন্ত কেউ কোন বিবৃতি দেয়নি, কোথাও কোন মিটিংও হয়নি। আজ মনে বড় প্রশ্ন জাগে, বিশ্ব নেতৃবৃন্দরা কি সত্যিই সংখ্যালঘু ও নিপিড়িত মানুষের জন্য কাজ করে ? নাকি শুধু মুসলমানদের জন্যই কাজ করা তাদের একমাত্র পবিত্র দায়িত্ব বলে মনে করে। উল্লেখ্য যে, ১৯৪৭ সালে দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধের পর হইতে এই পর্যন্ত ৫০.৫ মিলিয়ন হিন্দু বাংলাদেশ থেকে বিতাড়িত হয়ে ভারতে চলে এসেছে। শুধুমাত্র ১৯৫০ সালে বাংলাদেশ থেকে ১ মাসে ৫০ লাখের বেশি হিন্দু বাধ্য হয় দেশান্তরিত হযে ভারতে আশ্রয় নিতে। ১৯৪৭ এর পর থেকে ১৯৫২ পর্যন্ত এই ৫ বছরে পূর্ববঙ্গের হিন্দু ২৯% থেকে ২২% এ নেমে এলো, মুসলমানদের দ্বারা লিপিবদ্ধ ইতিহাসে এই তথ্য আপনি কোথাও পাবেন না। কেননা তারা হিন্দু নির্যাতন সম্পর্কে কখনোই সঠিক তথ্য প্রকাশ করবে না, এটা কমবেশি সবাই জানে। তারপর ১৯৭১ থেকে ২০১৯ এর এপ্রিল পর্যন্ত এই সময়ে বিএনপি-জামাতের খালেদা জিয়া সরকার, জাতীয় পার্টির এরশাদ সরকার ও আওয়ামী লীগের হাসিনা সরকারের আমলে নির্যাতনের শিকার হয়ে প্রতিদিন বাড়িঘর ফেলে হিন্দুরা ভারতে পাড়ি জমিয়েছে। কারও শাসনামলেই বাংলাদেশের হিন্দুরা ভালো ছিল না। সরকরি হিসাবে এখনও বাংলাদেশে প্রায় ১০% বা ১৭ মিলিয়ন হিন্দু জনসংখ্যা আছে। আমাদের হিসাব অনুয়ায়ী এই সংখ্যাটা কম করে হলেও ৩০ মিলিয়ন হইবে।বাংলাদেশ স্বাধীন হলেও হিন্দুরা প্রকৃত স্বাধিনতার স্বাদ আজও পায়নি। স্বাধীনতার আগে ও পরে হিন্দু নির্যাতন একই রয়েছে। বরং হাসিনা সরকারের আমলে হিন্দু নির্যাতন বেড়ে গিয়েছে কয়েক গুণ। তবুও বিশ্বসম্প্রদায় সম্পূর্ণ নিরবতা পালন করছে। শুধুমাত্র দরদ দেখাচ্ছে ফিলিস্তিনি ও রোহিঙ্গাদের জন্য। আমি মনেকরি, বাংলাদেশের হিন্দুদের সমস্যা একটি পুরানো ও বৃহত্তম সমস্যা। তাই বিশ্বসম্প্রদায়কে সর্ব প্রথম বাংলাদেশের হিন্দুদের সমস্যাটি সমাধান করার উদ্দ্যোগ নিতে হইবে। তারপরে ফিলিস্তিনি ও রোহিঙ্গাদের সমস্যা নিয়ে ভাবা উচিত। তাছাড়া ভারত সরকারের উচিত, সারা ভারতে NRC করে বাংলাদেশ থেকে আগত সকল হিন্দু উদ্বাস্তুদের ফেরত পাঠানো। মাতৃভূমি জননী সম, এটা সবাই জানে। প্রিয় মাতৃভূমি ছেড়ে হিন্দুরা আজ ভারতের মাটিতে খুব কষ্টে জীবণ যাপন করছে, এবং তাদের আত্মীয় পরিজন এখনও বাংলাদেশে রয়ে গেছে। আত্মীয় পরিজনের সাথে দেখা করতে ভারতে আসতে তাদের নানান ভোগান্তী পোহাতে হয়। দারীদ্রতার কারণে অনেকে আত্মীয় পরিজনের সাথে দেখাও করতে পারেনা। যেহেতু তাদের জন্মভূমি বাংলাদেশে এবং তাদের পূর্বপুরুষদের সমাধিস্থলও বাংলাদেশে, তাই তাদেরকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো ভারতের দায়িত্ব এবং কর্ত্যব্য। এতে করে ভারতে উদ্বাস্তু সমস্যাও লাগব হইবে এবং হিন্দুরাও তাদের প্রিয় মাতৃভূমি ও আত্মীয় পরিজনের সাথে বসবাস করিতে সামর্থ হইবে। কয়েকটি অনলাইন পত্রিকার মারফতে জানতে পারিলাম যে, ঢাকেশ্বরী মন্দিরে পূঁজা দিতে মোদীজি খুব শীঘ্রই বাংলাদেশে যাচ্ছেন। মোদীজির বাংলাদেশ সফরকে গুরুত্ব […]

Why so much objection to talking about Hindu rights ? Shipan Kumer Basu.

We know that Jerusalem is the holy place of the Jews. The City of Jerusalem has 3,000 years of epic history. Jerusalem has been attacked 52 times so far. Siege, occupation and recovery have been 44 times. It has been surrounded 23 times and it has been destroyed twice. After the formation of Israel in 1948, as the first country the United States recognizes Jerusalem as the capital of Isreal. Although the influential countries of the world recognize Jerusalem as Israel, Palestinians have not withdrawn from Jerusalem because the Muslim-dominated countries have provoked Palestinians for mant years. Recently, the government of 70 Muslim countries in the OIC conference issued a statement on behalf of the Palestinians about Jerusalem, among them Hasina of Bangladesh. According to the 2016, 48.2 lakh population lives in Palestine. For this small number of people, 70 Muslim countries make statements unanimously, as well as some non-Muslim countries. On the other hand, the world community repeatedly meets for a million Rohingyas who are living as a refugee in Bangladesh, a meeting with the Rohingyas also held in the United Nations, there is a meeting in Europe and America. But no one has given any statement to 30 million Hindus of Bangladesh and 50.5 million Hindus, living as refugees in India, coming from Bangladesh to being deportation. There is no meeting anywhere for them. Today a big question arises, do world leaders really work for the minority and the oppressed ? Or do they think that working for Muslims is their only sacred duty. It is to be noted that, after the Second World War in 1947, 50.5 million Hindus have been deported from Bangladesh and have come to India. In 1950, more than 5 million Hindus were forced to migrate from Bangladesh in India. From 1947 to 1952, the Hindus of East Bengal came down from 29% to 22%, you will not find this information in the history recorded by Muslims. Because they will never reveal the correct information about Hindu torture, it is known to everyone at least. Then, from 1971 to April 2019, at that time, the Hindus left for India in the Khaleda Zia government of BNP-Jamaat, Jatiya Party’s Ershad government and the communal Hasina Govt. of Awami League party. Under the rule of all the govt of Bangladesh, Hindus was not good. According to the government, there are almost 10% or 17 million Hindu population in Bangladesh. According to our calculations, this number will be minimum 30 million. Although Bangladesh was independent, Hindus did not even enjoy the true freedom today. Hindu torture is the same before and after independence. Rather, during the Hasina government, Hindu torture has increased multiple times. Yet, the world community is keeping complete silence. Only showing condolences for Palestinians and Rohingyas. I think, the problem of Hindus in Bangladesh is an old and biggest problem. Therefore, the world community will first seek to solve the problems of the Hindus of Bangladesh. Then think about the problems of Palestinians and Rohingyas. Moreover, the Indian government should send back all the Hindu refugees coming from Bangladesh by NRC all over India. Motherland is like a mother, everyone knows it. Due to the beloved motherland, Hindus are living very hard on the soil of India today left the motherland Bangladesh. To […]

See the below, how spreading hate against all non-Muslims from childhood.

See the below, how spreading hate against all non-Muslims from childhood.Character of a non-Muslim:Islam says: Give Zakat to the poor in Allah’s way.In response: He says that if the zakat is given, my property will be reduced. I’ll take interest on my money.Islam says: always speak the truth. And refrain from lying.He answers: What do I do by accepting such a truth ? So that I will only be harmed, no profit. And why should I refrain from lying, which will be beneficial for me so that there is no fear of corruption ?He crossed a deserted road and saw a valuable thing.Islam says: This is not your wealth, but you can not accept this thing.Answer: He says, why would I leave the things that come automatically ? There is no one here, seeing that, who will informed the Police or witness the in court. Then why would I not be benefited from the money collected ?In every step of life, Islam will instruct him to follow a special path, and non-Muslim will follow the full opposite path. Because, the value of everything in Islam is determined by the results of the Hereafter. But the non-Muslim person thinks about each and every situation about the consequences of the world. Why people can not be Muslim without faith in the Hereafter, it is clearly understood. It is not far away from being a Muslim, in fact, non-Muslim people reject the Hereafter and non-Muslim people go to the lower level than animals.NB: The above information has been added to the purpose of all Muslims in the fifth grade book Named “Islam and Moral Education” published by National Curriculum and Textbook Board Dhaka, Bangladesh. There is no similarity with reality. This book has been reprinted in last 2018. On the 16th and 17th no page of this book, the insidious writings above have been there. Report by: Nihar Ranjan Biswas.

A brutal history of deportation of Hindus from East Bengal in 1950.

History of Hindu oppression-More than 5 million Hindus were forced to migrate from Bangladesh in 1 month, in 1950. Dhirendranath Dutta || In the history recorded by Muslims, the history of Bangladesh (before east Bengal) started from the language movement of 1952. But what happened in this land, from 1947 to 1952, why in this 5 years the Hindus of East Bengal came down from 29% to 22%, you can not find its history anywhere. No Muslim will write that history, because, then, have seen own face in the mirror. But Hindus need to know that history. So the stories that have been picked up in many bases. Knowing that you will be shocked, understand the real character of your neighboring Muslims. The events that began on 10 February 1952 After the Pakistani claim was raised in the Lahore Resolution of 1940, from 16 to 19 August 1946, Muslims killed about 20 thousand helpless Hindus by celebrating “Direct Action” Day in Calcutta for the sake of Pakistan. Arson-vandalism-looted Hindus home and business center and raped innumerable Hindu girls. By showing fear the Hindus to kill them or to save their life, they also try to convert. Then the Muslims started attacking larger Noakhali, there were about 1,500 Hindus killed brutally, raped almost all Hindu girls from 12 to 42, forced to convert almost everyone. Most of the Hindus are being driven out of birthplace after being subjected to extreme pressure. The country was divided on the bloodshed of the Hindus, almost two million Hindus and Sikhs died in East and West Pakistan. Rape is about 1 lakh girls and a few crore Hindus and Sikhs being refugees. But by doing so much and getting the country, the Muslims were not happy. They want more, want the houses of the rest of the Hindus and the land and everything else. That is why Hindus have to be killed, women should be raped, they have to evection from the country. In East Bengal, the number of Hindus will be reduced as soon as possible and their spine will be broken. The plan of the pakistani started from the 1950’s Hindu deportation. Many call it the 1950 riots. But they forget that the riot means fighting between two parties. Such riots have never happened in Bengal. What is happening here is always Hindu torture. Because of this, since 1946, the Hindus of Bangladesh have been killed by only Muslims till now, although a Muslim has not been killed by the Hindus. So, this is the reason that these envy can not be called a riot ? Actually, these incidents have been tried to name in a riotous manner to justify the persecution of Muslims as logicaly right. It’s like this, they also killed, we also killed, there is nothing wrong with it. But there was never a Hindu Muslim fight in Bengal, Muslims always beaten Hindus and were being tortured by them. Intolerance began since 1946, and this intolerance was sacrificed in the larger Noakhali, Comilla and Hindus of Dhaka. The incidents of subsequent Hindu violence are an elaborate of ’46 intolerance. Many people thought that if the country was divided, Muslims would find themselves in one country, these problems would be settled. But those who thought that they had no idea about […]