Blog

Secretary General of BNP, Mirza Fakhrul Islam Alamgir has expressed his desire to work with Hindus.

Secretary General of BNP, Mirza Fakhrul Islam Alamgir has expressed his desire to work with the shoulder to shoulder and hands in the hands of the Hindu community while coming to power. He also said, “Today there is a lot of Kangso in the country. Lord Krishna has to be very much needed again to kill that Kangso.

Mirja Fakhrul and Gayeshwar Roy

 

Mr. Fakhrul, from 2001 to 2006, you were no less than Kangso, but I myself have been a victim of that time, saying that after five years of liberation in Bangladesh you had a black chapter for the Hindus! Forgot about the horror of the Hindus in 64 districts of that time ??? Today, 63 districts of 64 districts are excluded from today, I want to remind you that the activities of the BNP were done after the poll of 2001 on the Hindus in a district. Annadaprasad is a Hindu-dominated village of Lordhardings Union in Lalmohan upazila of Bhola is . This village is located 70 kilometers south of Bhola city. On 2 October 2001, BNP Jamaat terrorists attacked the village of Annadaprasad. On October 1 night, people of Hindu community in various areas of Lalmohan became panic in the event of attacks, rape, torture and arson. On October 2, after the election, Hindu women from neighboring villages of Ananda Prasad village chose to be safe places Vanderbari surrounded the paddy fields and wetlands on the four sides of the village. Hundreds of women took shelter there for their honor.
But the house also did not stop the terrorists’ attention. Hundreds of BNP-backed terrorists organized 8/10 groups planned that night in a planned manner. After a series of attacks, started girls raping and helpless girls from the helpless Hindu families. Despite the efforts of the women, women could not protect their dignity. Many fear the loss of pride, life’s illusions frayed in darkness and pounded the surrounding pond of rice fields. When the women tried to protect the dignity of the women when they threatened to drop their children into the water, they tried to save the lives of the children when they tried to save the lives of the children. And they are actually gang raped. In this way your workers gang raped 200 Hindu women together that night. Fakrul saheb forgot it ??? Ever apologize ??? (collected News)
ক্ষমতায় গেলে হিন্দু সম্প্রদায়কে সাথে নিয়ে কাঁধে কাঁধ আর হাতে হাত মিলিয়ে কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফকরুল ইসলাম আলমগির! তিনি আরো বলেছেন, “আজ দেশে কংসের আর্বিভাব ঘটেছে। সেই কংসকে বধ করার জন্য ভগবান শ্রীকৃষ্ণকে আরেকবার খুবই প্রয়োজন।
জনাব ফকরুল সাহেব, ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত আপনারাও কংসের চাইতে কম ছিলেন না, আমি নিজে সেই সময়ের একজন ভুক্তভোগী হয়ে বলছি, বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধের পর আপনাদের এই ৫ বছর ছিল হিন্দুদের জন্য এক কালো অধ্যায়! ভুলে গেলেন ৬৪ জেলায় সেইসময়ের হিন্দুদের উপর ভয়াবহ তান্ডবের কথা??? ৬৪ জেলার মধ্যে ৬৩ জেলার কথা আজ বাদ দিলাম, শুধু একটি জেলায় হিন্দুদের উপর ২০০১ সালের নির্বাচনের পর বিএনপির কর্মীরা কি পরিমান তান্ডব চালিয়েছিল তা আপনাকে স্মরণ করিয়ে দিতে চাই। ভোলার লালমোহন উপজেলার লর্ডহার্ডিঞ্জ ইউনিয়নের হিন্দু অধ্যুষিত অন্নদাপ্রসাদ গ্রাম। ভোলা শহর থেকে ৭০ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থিত এই গ্রামটি। ২০০১ সালের ২ অক্টোবর অন্নদাপ্রসাদ গ্রামে আক্রমণ করে বিএনপি জামায়াতের সন্ত্রাসীরা। ১ অক্টোবর রাতে হামলা, ধর্ষণ, নির্যাতন, অগ্নিসংযোগ ইত্যাদি ঘটনায় লালমোহনের বিভিন্ন এলাকার হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকেরা আতঙ্কিত হয়ে পড়ে। নির্বাচনের পরদিন ২ অক্টোবর অন্নদা প্রসাদ গ্রামের আশপাশের গ্রামের হিন্দু মহিলারা নিরাপদ স্থান হিসেবে বেছে নিয়েছিল গ্রামের চার পাশের ধানক্ষেত ও জলাভূমি পরিবেষ্টিত ভেন্ডারবাড়ী। কয়েকশো মহিলা তাদের সম্ভ্রম রৰার জন্য সেখানে আশ্রয় নেয়। কিন্তু সে বাড়িটিও সন্ত্রাসীদের নজর এড়ায়নি। শত শত বিএনপি সন্ত্রাসী ৮/১০টি দলে বিভক্ত হয়ে পরিকল্পিতভাবে ওই রাতে হামলা চালায়। একের পর এক দল হামলা চালিয়ে অসহায় হিন্দু পরিবারের মেয়েদের ধর্ষণ করতে থাকে। শত চেষ্টা করেও মহিলারা তাদের সম্ভ্রম রক্ষা করতে পারেনি। অনেকেই সম্ভ্রম হারানোর ভয়ে, প্রাণের মায়া তুচ্ছ করে অন্ধকারে ঝাঁপিয়ে পড়ে আশপাশের জলাশয়ের ধানক্ষেতে। মহিলারা পানিতে ঝাঁপিয়ে সম্ভ্রম রক্ষার চেষ্টা চালালে বিএনপির সন্ত্রাসীরা তাদের সন্তানদের পানিতে ফেলে দেয়ার হুমকি দিলে সন্তানদের জীবন রক্ষায় তারা উঠে আসতে বাধ্য হয়। আর উঠে আসলেই তারা গণধর্ষণের শিকার হয়। এভাবে সেই রাতে আপনার কর্মীরা একসাথে ২০০ হিন্দু নারীকে গণধর্ষণ করে। ভুলে গেলেন ফকরুল সাহেব??? কখনো ক্ষমা চেয়েছেন???

%d bloggers like this: