Shipan Kumar Basu

Happy Hanukkah to all Jewish…Shipan Kumar Basu.

Happy Hanukkah to all Jewish. I like to wish love and sincere greetings to all Jewish on the occasion of “HAPPY HANUKKAH”. Before, I not knew that what is Hanukkah, why it is celebrated or what is the importance of this Hanukkah. But whenever I started studying about Hanukkah, I saw the history behind it, indeed Hanuka is a combination of joy and pain. About 200 BCE/BC, the rulers of the Greek Empire killed many Jewish in the name of imposing their religious doctrine over the Jewish. The Temple of the Jewish has occupied and robbing gold jewelry of Temple, which is very painful. We know very well about such this brutal incident, like grabbing the temple, plundering the gold ornaments of the temple, and vandalizing the temple is very painful. Because, we are Bangladeshi minorities have been facing such torture for more than 100 years. From the childhood, the fundamentalists have been torturing Hindus and breaking their temples including various tortures, which are still in progress. Although we get geographical independence from West Pakistan in 1971, we Hindus-Buddhist-Christian and other minority communities did not get yet true taste of freedom. Fundamentalists always keep the minorities in this country under direct and indirect pressure. Besides, usual torture continues. No government has done yet anything for us. Rather, we are being negligent during the rule of every government. I feel very happy knowing that you have established your religious rights in exchange for three years of hard struggle and many sacrifices. But it is a little strange, because the history of deprivation you and us is almost same. We love the Jewish as much as we love the people. I hope that soon the Bangladeshi minorities will be able to establish a symposium with the whole Jewish people of Israel or around the world. I hope we will be able to get back our religious rights once you have your intelligence, consultation and other related assistance. Finally, I would like to greet the Jewish on the occasion of Happy Hanukkah. Shipan Kumar Basu President (International) World Hindu Struggle Committee.

WHSC India’s President Abhishek Gupta visit Kolkata.

Yeasterday at 9:00 am, Shipan Kumar Basu President of the WHSC went to the Netaji Subhash Bose Airport in Calcutta to receive the World Hindu Struggle Committee, India’s President Abhishek Gupta, he also a Youth leader of the central BJP. At this time was present with him Khulna’s famous businessman Jamal Talukder, Nihar Ranjan Biswas secretary general of World Hindu Struggle Committee Bangladesh, Ajoy Datta. Apu Roy and Sanjoy Thakur. On arrival of World Hindu Struggle Committee all India’s President and BJP’s central leader Abhishek Gupta, World Hindu Struggle Committee West Bengal’s President Pradip Ghosh and prominent social personality Sukumar Biswas were meet together at the house of Shipan Kumar Basu. From here Abhishek Gupta will participate in various programs of the West Bengal. Also they have a big programe on 1st october at the Rasika Ranjana Sabha center of Raja Basanta road of Kolkata.

“Furfura Darbar Sharif” visit.

A delegation of three members lead by Shipon Kumar Basu visited “Furfura Darbar Sharif” in west Bengal of India. on 28th September at afternoon, we go to visit Furfura Darbar Sharif at Hooglee district of West Bengal, India. In this time was with me Pradip Ghosh, President of West Bengal Hindu Struggle Committee and Jamal Talukder, prominent businessman of Khulna district of Bangladesh. At this time also held a important meeting with the Baro Hujur Peerzada Alhaj Md. Taha Siddiqui. In this discussion, the Furfura darbar Sharif’s Baro Hujur explained the history of the glorious heritage of the organization. In the meantime, remembering the co-pilot fans spread across different parts of the subcontinent, including Bangladesh, India, Pakistan, he said that he also had millions of devotees in the land of Bangladesh, I wish them all-round well-being. Moreover, he expressed his anger over the ongoing political unrest in Bangladesh that the female leadership is leading Bangladesh to ruin and due to female leadership, Bangladesh’s minority is being victim of communal attacks in the country. Women leaders can not suppress any wrong crime. If you want to see Bangladesh as a real non-communal and stable state, Must you have to come out of female leadership. Most religious leaders of Bangladesh have rejected Sheikh Hasina or female leadership long ago. Now you should be a man to be appointed as leader. He said, I heard more from different media of Bangladesh that a large part of the citizens of Bangladesh do not want to see Sheikh Hasina on the power of the government and a large number conscious citizens of the Bangladesh are working for Aslam Chowdhury. Although Aslam Chowdhury is still in jail! But I pray that Aslam may return to the people who are free from extreme speed. Best wishes for Aslam Chowdhury. I hope all Bangladeshi devotees of Furfura Darbar Sharif will support Aslam Chowdhury and will always cooperate with Aslam Chowdhury. Besides, he pointed out some of the leaders of West Bengal and Bangladesh, especially Jamaat-e-Islami leaders that, they eat rice of India and Bangladesh but they sing songs for Pakistan. Never should we dream of creating such an ideal state with such evil-willed leaders. He also said that every nation should first love the country. He also said that the leaders of several Islamic organizations in Bangladesh are using Islam as a political weapon even as Sheikh Hasina itself has become a big religion business today. Which, Islam never supports. Both, religions and country are different, never religion and the state should be mixed together, everyone should reject such these leaders.

বাংলাদেশের হিন্দুদের ভারতের নাগরিকত্ব প্রদান ও বাংলাদেশের হিন্দুদরে নির্মম বাাস্তবতা, শিপন কুমার বসু।

বাংলাদেশের হিন্দুদের ভারতের নাগরিকত্ব প্রদান ও বাংলাদেশের হিন্দুদরে নির্মম বাাস্তবতা, শিপন কুমার বসু। বাংলাদেশ থেকে নির্যাতনের শিকার হয়ে ভারতে চলে আসা কতজন হিন্দু সরকারী ব্যাবস্থাপনায় নাগরিকত্ব পেয়েছে, তার সঠিক পরিসংখ্যন প্রকাশ করা উচিত। গত ১১ ই আগষ্ট ২০১৮ ইং তারিখে, কলকাতার মেয়ো রোডে এক জনসভায় ভারতীয় জনতা পার্টির সর্ব ভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ ঘোষনা দিয়েছেন যে, বাংলাদেশ থেকে আগত সকল নির্যাতীত হিন্দুদের ভারতের নাগরিকত্ব প্রদান করা হইবে। তারপরই ভারত ও বাংলাদেশের সোস্যাল মিডিয়ায় এই বিষয়টি নিয়ে হইচই পরে যায়! এখন প্রশ্ন হলো যে, বাংলাদেশ থেকে নির্যাতনের শিকার হয়ে আসা কোন নির্যাতিত হিন্দু পরিবার আজ পর্যন্ত ভারতের নাগরিকত্ব পেয়েছে কি ? আমার জানা মতে এখনো পর্যন্ত কাউকেই নাগরিকত্ব দেওয়া হয় নাই, স্বাধীনতার পর থেকে এই পর্যন্ত যত সংখ্যক হিন্দুই বাংলাদেশ থেকে পালিয়ে ভারতে এসেছে তারা সবাই পরিচয় গোপন করে ভারতে বসবাস করছে। বিভিন্ন গণমাধ্যম ও সংস্থার রির্পোট অনুয়ায়ী ১৯৭১ সালের পর বাংলাদেশ থেকে ভারতে পালিয়ে আসা ভারতের মাটিতে নির্যাতিত হিন্দুর সংখ্যা প্রায় দেড় কোটি, এরা পশ্চিমবঙ্গ, ত্রিপুরা ও আসামের বিভিন্ন অঞ্চলে বসবাস করে আসছে; তাদের মধ্যে অনেকেই ভূয়া পরিচয়ে অর্থাৎ নিজের ও বাবার প্রকৃত নাম ঠিকানা বদল করে অবৈধ পন্থায় ভারতীয় আধার কার্ড, প্যান কার্ড তৈরী করে বসবাস করে যাচ্ছে। ২০১৪ সালে বিজেপি ক্ষমতায় আসার আগে ও পরে বিভিন্ন সময় ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও বিজেপির সভাপতি তাদের বক্তৃতায় বলেছেন বাংলাদেশে, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান থেকে নির্যাতিনের শিকার হয়ে কোন হিন্দু ভারতে পাালিয়ে আসলে তাদেরকে নাগরিকত্ব দেওয়া হইবে। আদৌ কি তাই ! গত ১১ জুলাই ২০১৮ ইং তারিখে “বিবিসি নিউজ/বাংলা” কলকাতায় এসংক্রান্ত একটি সংবাদ প্রকাশিত হয় যার শিরোনাম ছিল “পাকিস্তান থেকে আসা হিন্দুরা ভারত ছেড়ে যাচ্ছেন কেন ?” এতে বলা হয়েছিল- পাকিস্তানে অত্যাচার-বৈষম্যের কারণে যেসব হিন্দুরা ভারতে চলে এসেছিলেন, তাঁদের একটা অংশ আবারও ফিরে যেতে শুরু করেছেন। এদের অভিযোগ, দীর্ঘদিন ধরে ভারতের নাগরিকত্ব না পেয়ে আবারও নিজের দেশে ফিরতে শুরু করেছেন এরা। নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বাধীন সরকার ২০১৬ সালেই ঘোষণা করেছিল যে পাকিস্তান, বাংলাদেশ, আফগানিস্তান সহ প্রতিবেশী দেশগুলিতে কোনও হিন্দু যদি ধর্মীয় কারণে অত্যাচারিত হন, তাহলে তাঁদের স্বাগত জানাবে ভারত, দেবে নাগরিকত্ব। কিন্তু পাকিস্তান থেকে আসা হিন্দুদের একাংশের এখন মনে হচ্ছে যে ওই ঘোষণাই সার হয়েছে, নাগরিকত্ব দেওয়া হচ্ছে না নানা অছিলায়। পাকিস্তান থেকে হিন্দুদের ভারতে চলে আসা শুরু হয়েছিল ১৯৬৫-তে দুই দেশের যুদ্ধের পরেই। তারপরে আরও এক ঝাঁক হিন্দু ভারতে চলে এসেছিলেন ৭১-এর যুদ্ধের সময়, আর শেষবার বড় সংখ্যায় হিন্দুরা পাকিস্তান ছেড়ে আসেন ৯২-৯৩ সালে, অযোধ্যায় বাবরি মসজিদ ধ্বংসের পরবর্তী সময়ে। আসুন দেখে নেই, ভারতের নাগরিকত্ব কিভাবে নির্ধারিত হয় ? ভারতীয় নাগরিকত্ব সাধারণত জন্ম এবং বংশপরম্পরা দ্বারাই অর্জিত হয়। ১৯৪৯ সালের ২৯ নভেম্বরে লাগু হওয়া ভারতীয় সংবিধান অনুযায়ী, যদি কোনও ব্যক্তির বাবা অথবা মা ভারতে জন্মগ্রহন করেন বা পাঁচ বছরের বেশি সময় সেই ব্যক্তি ভারতে থাকেন, তিনি ভারতের নাগরিক হিসাবে চিহ্নিত হতে পারেন। ১৯৫৫-র নাগরিকত্ব আইন অনুযায়ী, জন্মের তারিখের নিরিখেও নাগরিকত্ব দেওয়া হয়। ১৯৫০ সালের ২৬ জানুয়ারি থেকে ১৯৮৭ সালের ১ জুলাই-এ ভারতে যাঁদের জন্ম তাঁদের জন্মসূত্রে ভারতীয় বিবেচনা করা হয়েছে । ২০০৪-এর ৩ ডিসেম্বরের মধ্যে জন্মগ্রহণ করেছেন এমন ব্যক্তির বাবা অথমা মা কেউ একজন ভারতীয় হলেই তাঁকে ভারতের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে। ভারতের সঙ্গে বিবাহ সূত্রে বা বংশ পরম্পরা সূত্রে সম্পর্কযুক্ত কোনও বিদেশী কি ভারতের নাগরিক হতে পারেন? এই নাগরিকত্ব স্বাভাবিকভাবেই প্রদান করা হয়। কোনও বিদেশী যদি অবৈধভাবে ভারতে না এসে থাকেন, সেক্ষেত্রে তিনি নাগরিকত্ব অর্জন করতে পারেন। এই নাগরিকত্ব কি স্থায়ী ? ১৯৫৫ সালের আইনের ৯ (১) ধারা অনুযায়ী, কোনও ব্যক্তি স্বেচ্ছায় অন্য দেশের নাগরিকত্ব পেতে চাইলে বা ভারত ছাড়তে চাইলে এই নাগরিকত্ব প্রত্যাহার করতে পারেন। এক্ষেত্রে ভারত দ্বৈত নাগরিকত্ব অনুমোদন […]

Swaminarayan Temple Visit

Today, I have visited this Temple. It’s name BAPS Shri Swaminarayan Mandir (Temple). It is situated between Bishnupur and Thakurpukur (Bhasa 14 No., Diamond Harbour Rd. Dist. 24 Parganas (South), Kolkata, India, 743503). According to my view, this is a most big Temple in the West Bengal. At the visiting time there was four person with me, Shri Bijan Majumde, Meshu, Mashi and our car driver Shri Sujit Baidya. We went to the Temple at 11:05 am, it was just before starting daily rutine worship at 11:15 am. So, then I had feel too happiness. Then, we had participated this worship. I think that, it was a wonderful moment of my life. I had taken 84 picture from this Temple. There are some picture here for all of you. During the worship, I heard the sound of ‘RAM’ from their mouth. So I think they believe in Ram. Joy Shri Ram. However, we went to the ‘BHARAT SEVASHRAM SANGHA HOSPITAL’ before going to the temple. This hospital offers quality medical services for a little money. Many Many thanks to Almighty Lord Shree Krishna. Nihar Ranjan Biswas

Congratulation to PM Narendra Modi on the occasion of his Birthday.

Today (17/09/2018), the world’s largest democracy country India’s Prime Minister Narendra Modi’s Happy Birthday. He was born in Mehsana district of Gujarat on September 17, 1950. Today, he will complete 67 years of life and move to 68. On the occasion of birthday, he will hand over various materials in the hand of 11 thousand disabled people which are expected to make the world record. BJP’s president, Amit Shah, said that Modi’s birthday will be celebrated as ‘Service Day’. I think this is a timely and judicious decision of Amit Shah and this decision will be a milestone in history. Today, on this happy day, I hope he will be stand with the people of Hindus, Buddhists, Christians, Indigenous and all the deprived people of Bangladesh in the next election. And will play an important role in establishing a new and genuine public government in Bangladesh by rejecting autocratic Sheikh Hasina, the dictator of the minority evacuation, the cremation occupier of the Hindus, supporter and protector of the terrorist and rapists student league, historically liars, the protector of the killers, destroying economic infrastructure and mother of looted people. As the President of the World Hindu Struggle Committee, I wish you all the people of Bangladesh, the best of luck, and I wish you longevity. Shipan Kumar Basu President World Hindu Struggle Committee (WHSC). (আজ বিশ্বের সবচেয়ে বড় গণতান্ত্রিক দেশ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির শুভ জন্মদিন। ১৯৫০ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর গুজরাটের মেহসানা জেলায় তিনি জন্মগ্রহণ করেন । আজ তিনি জীবনের ৬৭ বছর পূর্ণ করে ৬৮-তে পদার্পণ করবেন। জন্মদিন উপলক্ষে ১১ হাজার প্রতিবন্ধীর হাতে বিভিন্ন সামগ্রী তুলে দেবেন, যা বিশ্বরেকর্ড গড়বে বলে মনে করা হচ্ছে। ক্ষমতাসীন দল বিজেপির সভাপতি অমিত শাহ জানিয়েছেন, মোদির জন্মদিনকে ‘সেবা দিবস’ হিসেবে পালন করা হবে। আমি মনে করি, এটি অমিত শাহর সময়োপযোগী ও যুগান্তরকারী সিদ্ধান্ত এবং এই সিদ্ধান্ত টি ইতিহাসে মাইলফলক হয়ে থাকবে। আজকের এই শুভ দিনে আমি আশা করি, তিনি আগামী নির্বাচনে হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রীস্টান, আদিবাসী ও বাংলাদেশের সমস্ত সুবিধা বঞ্চিত গণ মানুষের পাশে থাকবেন। এবং স্বৈরাচার, সংখ্যালঘু উচ্ছেদকারী, হিন্দুদের শ্মশান দখলকারী, ছাত্রলীগ নামক সন্ত্রাসী ও ধর্ষকদের সমর্থনকারী, ঐতিহাসিক মিথ্যাবাদী, খুনীদের রক্ষাকারী, অর্থনৈতিক অবকাঠামো ধ্বংসকারী এবং লুটতরাজদের জানকী শেখ হাসিনাকে প্রত্যাখ্যান করে বাংলাদেশে একটি নতুন ও সত্যিকারের জনগনের সরকার প্রতিষ্ঠায় অগ্রনী ভূমিকা পালন করবেন। ওয়ার্ল্ড হিন্দু স্ট্রাগল কমিটির সভাপতি হিসাবে আমি বাংলাদেশের সকল নাগরিকদের পক্ষ থেকে, আপনাকে জানাই লাাল গোলাপের শুভেচ্ছা এবং আমি আপনার দীর্ঘায়ু কামণা করছি।)

GANESH MANDOP VISIT

Yesterday, on behalf of the World Hindu Struggle Committee, a delegation of six people including Nihar Ranjan Biswas, Ajoy Datta, Tirtha Basu and Disha Basu, under the leadership of Shrimati Sabita Basu and Shree Bijon Majumdar visit Sri Sri Ganesh Puja Mandup, organized in Shimultola Adarsha ​​Palli, Krishnapur of Calcutta. At this time, leaders of Puja Celebration Committee congratulate to Mrs. Sabita Basu and Mr. Bijon Majumdar by giving Uttori. And after the completion of the visit Mrs. Sabita Basu gave Rs 5,000 / Rupees in the hands of the Puja committee. Shipan Kumar Basu President World Hindu Struggle Committee (WHSC) (গতকাল, ওয়ার্ল্ড হিন্দু স্ট্রাগল কমিটির পক্ষ হইতে, আমার সহধর্মিনী শ্রীমতি সবিতা বসু ও শ্রী বিজন মজুমদারের নেতৃত্বে নিহার রঞ্জন বিশ্বাস, অজয় দ্ত্ত, তীর্থ বসু ও দিসা বসু সহ মোট ৬ জনের একটি প্রতিনিধি দল শিমুলতলা আদর্শ পল্লী, কৃষ্ণপুর, কলকাতায় আয়োজিত শ্রী শ্রী গনেশ পূজা মন্ডপ পরিদর্শনে যায়। এসময় পূজা উদযাপন কমিটির নেতৃবৃন্দ শ্রীমতি সবিতা বসু ও শ্রী বিজন মজুমদারকে উত্তরী দিয়ে বরন করে নেন। এবং পূজা পরির্দশন শেষে, শ্রীমতি সবিতা বসু বিশ্বাস পূজা কমিটির হাতে প্রণামী স্বরূপ ৫,০০০/ টাকা তুলে দেন।)

Why are the Hindus leaving Bangladesh ?

Violence on Bangladeshi Hindus in 2010. Why are the Hindus leaving Bangladesh ? Boni Amin: Attack on Hindus in Bangladesh, religion group under attack. Attack on Hindus planned national human rights commission. Five Hindu Temples attacked last week. Peoples come and left after vandalizing the temple the broke the deities at their WHIMS. They waged the attack from three directions our existence has no value. They beat the people and took away all the valuable from the Temples, they broke the statue, arrested nine. We will soon be able to arrest the remaining by identifying them. They have destroyed our home. I was not at home. T have returned yesterday as two of our fellow confirmed that police had come. No Hindu had their meal at home now. But cannot sleep. Everything is burned all of our documents of land, all our clothes, all our belongings. I am in fear. I am afraid of what will come in the future. I do not know what fate will have store for me. FREEDOM OF VOTE ? FREEDOM OF WOMEN ? MY daughter was kidnapped and found after 2 hours raped. At half past midnight on 15 th August 2010, hoodlums attacked my husband with the intention to kill him. While the case was going on, I went to the superintendent of Police to ask for a proper verdict on the attempt to kill my husband. The superintendent ordered me to withdraw the case. He then grabbed me, disrobed me and kissed me on both cheeks. I try to break free. When I threatened to scream then he started beating me in many ways not to tell anyone what happens or he would kill my husband in crossfire. He threatened me in many ways no to tell the story. I was tortured badly by the superintendent, but he was not punished, only transferred. FREEDOM OF LIVING ? At that moments eight to ten men grabbed me, some tore up my clothes and showed me to others. While they were pulling me, I pushed them away from me. And I ran away. I was horrific, some pulling my arms and some my legs. I was fear in my life. They wanted to kill me. Some of them lets strip her. They said they wanted us to leave, asking why we are still here. India is your is neighboring country. Leave this country and go there. Even Police And Military were present at the time, when the incident was tasking place. But they didn’t try to stop it. They said to the perpetrators, you carry on we are with you. What do you think would happen if you filed a case ? They would come at night and kill me. Devarshi Srivas Das(Protestor): All of us have assembled here because they (Fundamentalists) are destroying our Temples, they are breaking the Idols of our deities and they are also burning down our religious texts and the holy books of Bhagavad Gita. We want help from the government because we are the minority group in the country. We are therefore protesting.  (Modified setup by- Nihar Ranjan Biswas)

Discuss with Konok Barua leader of Chittagong and Chittagong Hill Tracts.

The meritorious, young and brave leader of the Chittagong and Chittagong Hill Tracts, “Konak Barua”, attended the morning breakfast on 10th September 2018, at 10:00am on Monday. At the end of the Breakfast, he has been discussing long time with reference to the rights of the deprived people of Chittagong Hill Tracts. At the time of 20 years after the peace agreement was not implemented properly he expressed his anger and he expressed his desire to work all his life to establish human rights in the citizens of Chittagong Hill Tracts region. His significant workloads are as follows:- (চট্রগ্রাম ও পার্বত্য চট্রগ্রাম অঞ্চলের মেধাবী, তরুন ও সাহসী নেতা “কনক বড়ুয়া” গত ১০/০৯/২০১৮ইং সোমবাার দিন সকাল ১০ টায় আমার বাসায় সকালের প্রাতঃরাশে অংশগ্রহন করেন। প্রাতঃরাশ শেষে তাহার সাথে চট্রগ্রাম ও পার্বত্য চট্রগ্রাম অঞ্চলের সুবিধা বঞ্চিত মানুষের অধিকার আদায় প্রসঙ্গ নিয়ে দীর্ঘ সময় আলোচনা হয়। এসময় শান্তি চুক্তির ২০ বছর পরেও যথাযথ বাস্তবায়ন না হওয়ায় তিনি ক্ষুভ প্রকাশ করেন এবং চট্রগ্রাম ও পার্বত্য চট্রগ্রাম অঞ্চলের মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে আজীবন কাজ করে যাওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।) Name:- Kanak Barua Chief coordinator Chittagong Democratic Fronts. 1. Works For:- (a) Minority, (b) Indigenous, (c) Backward Peoples. 2. Political Coordinator in:- (a) Students, (b) Workers, (c) Farmer Group of Plan Chittagong, (d) Womens, (e) Small Indigenous group in plan Chittagong. 3. Social Supporter for Fisherman in Chittagong. 4. Coastal area ( Traditional Fisherman). 5. Contributor at:- (a) About labor Law Development, (b) About human rights extension 6. Special effort in:- Chittagong hill tract improvement. Shipan Kumar Basu President World Hindu Struggle Committee (WHSC).