whsc news/news room

Exclusive interview of former chief justice Surendra Kumar Sinha.

  I have been forced to resign as the head of the government and the Prime Minister. “Former Chief Justice of Surendra Kumar Sinha, in an exclusive interview of Time Television! সরকার প্রধান ও প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশেই আমি দেশত্যাগে বাধ্য হয়েছি’- টাইম টেলিভশনের এক্সক্লুসিভ সাক্ষাতকারে ‘সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা!

Why are the non-Muslim minorities leaving the Islamic world in droves ?

As time progresses, the Islamic world is becoming more and more homogeneous. Fewer and fewer non-Muslims who have lived amongst Muslims since antiquity are choosing to remain in their ancestral homeland. The trend began with the establishment of the State of Israel. After Israel became a country, around one million Jews were compelled to leave the Arab world. Following the Iranian Revolution, many Persian Jews followed in their footsteps. Now, numerous non-Muslim minority groups including Christians, Hindus, Mandeans, and Bahais among others are following in the footsteps of the Mizrahi Jews. The question remains, why ? In Bangladesh, both Christians and Hindus are systematically persecuted. Not too long ago, there was a report that 8 Christian women were assaulted and beaten after a militant group attacked their home. Furthermore, sources within Bangladesh claim that a Hindu temple was vandalized and the Hindu gods were desecrated recently. In another instance, it was reported that a Hindu girl was raped and the girl’s father’s life was threatened. When the mother went to report the incident to the police, she was sexually assaulted, stripped naked and threatened into dropping the case. And according to the Hindu Struggle Committee, a minority was recently beaten up for refusing to participate in a political rally and the Awami League has proven themselves hostile towards Hindus who seek to run for political office. Given this situation, the Hindu Struggle Committee claims that an increasing number of Christians and Hindus are fleeing Bangladesh, moving either to India or the Western countries. For members of the Bahai faith in Yemen, the situation is quite dire. According to the US State Department, the Houthis in Yemen have been persecuted members of the Bahai faith. Amnesty International reported that a member of the Bahai faith was given the death sentence at the beginning of this year for allegedly communicating with Israel. They claimed that six other Bahai member were also detained merely for practicing their faith. According to social media reports, there are still Bahais in Houthi prisons merely for being Bahais and no other reason. Due to experiencing such persecution in Yemen, Iran and other Middle Eastern countries, most members of the Bahai faith today live in India, Kenya and the US. Even though the Bahai faith was founded in Iran, the Bahai faith’s international headquarters is located in the State of Israel, as the Iranians destroyed many of the historic Bahai shrines within the country in a manner that is reminiscent of the destruction of the Buddhist statues by the Taliban in Afghanistan. To this day, Bahais are not recognized as a legitimate faith in Iran and are denied the right to study in university, to work and to enjoy any semblance of basic human rights. The Bahais are not the only faith persecuted by the Iranian regime. The Mandeans, just like the Bahai, are denied the status of a protected faith in Iran. According to the Immigration and Refugee Board of Canada, Mandeans are systematically murdered and raped within the country due to the fact that the Iranian government considers them to be infidels. They claim that the Iranian courts have ruled that raping Mandean women and girls is part of their purification process and therefore, violators receive impunity. Furthermore, the report claimed that Mandeans are also not […]

Rohingyas will soon introduce Bangladesh to the world as a terrorist country

#Rohingya-free-Bangladesh, #Terror-free-world. Rohingyas will soon introduce Bangladesh to the world as a terrorist country. Bangladesh, one day gave shelter Rohingyas from the human perspective, but not for the permanent settlement, now it’s time to go back to their own country. The Rohingya people will be more harmed than the country’s harm by drug addicts tablets (Yaba). Many international organizations are working on this Rohingya issue with the anti-Bangladesh agenda, we have already got much evidence. We have received much information that, Pakistani militant organizations are working in the Rohingya camp and its authenticity is also matched. It is heard that not only Pakistan but also many Islamic countries, including Iran and Iraq, are involved in all these activities. An anti-Bangladesh clique is blowing the Rohingya brain in publicly on the daylight in the name of giving relief. There are allegations in various countries being trafficked and kidnapping young boys and many of them have been found to be true. The evidence that the Rohingya have been involved with various militant organizations, it has been found in the various newspapers. Occasionally they are engaging themselves in violence. Many of the people of Bangladesh have seen, many of those murdered. Child marriage, multiple marriages, more children and freely addiction to them is a regular and casual affair. Is the Rohingya community blessing or curse for Bangladesh ? does not come proper time to think about it? There are many food and essential items reserved in their home, which relief has come from many countries. They can eat without doing work for the next several days. There is no work, only eat and passing time with wife, now it is the main duty of them. That means the Rohingyas are eating official food and giving the company with women and the drugs. And giving birth to more children. If this is the situation why millions of Rohingya children will not be born every year! This unfortunate back finch will not bring benefits to the wretched people of Bangladesh, but they will be the burden of this country and one day they will become a big shame for Bangladesh. For them, Bangladesh may have to pay a lot. So there is still time to send them to their own country. Those who are doing politics in the Rohingyas, they are wrong, they can see the symptoms of their losses. They have gotten so many things, now have to go back to their own country. Recently, according to a survey of BRAC, 84% of Bangladeshis do not want to keep Rohingya in the country. The anti-Bangladesh international clique will soon complain of Bangladesh as a militant group. The Rohingyas will come as proof and issues. Very soon, it may be compared with Pakistani militant activities of Bangladesh. Organizations, many persons and the many countries are working to establish such an order. Their main target is the backward Rohingya population. Those person, organizations, and countries are working with the Rohingyas, now it’s clear like daylight. But it is not understandable, why the wise people in charge of the Rohingya camps are not able to understand? or are they rushing to the Rohingya rampage in a cheap mood? Because there are many foreign national organizations working on different objectives. Those working with Rohingya youth and children, they are […]

YABA TABLETS TRAFICING INTO HOLY QURAN,

YABA TABLETS TRAFICING INTO HOLY QURAN, 3 ROHINGYA DETAINED. (YABA IS A ONE KINDS OF TABLET, WHICH IS TOO MUCH DANGEROUS FOR HUMAN BODY) It is to be noted that, Rohingyas have been trafficking yaba in Bangladesh by fishing trawlers for many years The holy scripture of the Muslim community al-Qur’an But the Holy Qur’an has not felt hesitant to use such shocking acts as drug trafficking, including Rohingyas of Myanmar in the Muslim community. This hateful act is not the first time to them. Drug traffickers have admitted that they have done before. Border Guard Bangladesh (BGB) has detained 3 Rohingya people in Teknaf with 15,432 pieces Yaba, while smuggling them inside the Holy Quran. They were arrested on Monday night at around 01:00am with Yavas from Baroitali area on Teknaf Naf river. The detainees are, the son of Badi Alam of Maungdaw Sudha Para area of ​​Myanmar Jobair (20), son of late Iqbal Ahmad of Baroitali area Deen Mohammad (19) and son of Shafiullah of the same area Anwar Hossain (18). Teknaf BGB Battalion-2 Captain Lieutenant Cornel Md. Asaduzzaman Chowdhury told the reporter, Teknaf BOP patrol team headed by Habilder Ashraful Alam was patrolling the banks of the Naf river regularly. At the time, three traffickers riding a fishing boat in Myanmar’s side were throwing something down into the Keowar forest. BGB members challenged them as drug traffickers. They tried to escape from the presence of the BGB. At one stage BGB soldiers surrounded them and were able to flee them. During the search period, nothing was found for them. They were fooling the BGB members just because they did not have anything illegal. But they could not answer the question as to why they were fleeing from the BGB members. After the suspicion, the BGB members again searched through their bag again. At that time they found some Qur’an Sharif residing in the bag with them. Opening them, it is seen that in the form of four-quarters of the holy Qur’an, the pages of the Holy Qur’an cut the grooves and inserted Yaba packets inside it. Two separate cases of narcotics and illegal intrusion have been initiated in the Teknaf police station with the seized Yasabha of three smugglers seized. Border Guard Bangladesh (BGB) said the estimated value of Yaba was Tk 46,2900/. (March 12, 2018, www.ukhiyanews.com)

A human chain was held in Narail.

A human chain was held in protest against the breakdown of the rest houses and shops in Sadanandkathi universal Durga temple of Shahabad Union of Narail. This human chain was held in front of Sadanandkathi temple at around 11am on Monday (August 20th). Sadanandkathi temple president Chittaranjan Roy, secretary Nirmal Roy, Kajal Saha and Govinda Roy spoke in the human chain. (The Dainik Ocean, August 21, 2018) Speakers said that beside the temple, rest houses and shops were built to accommodate the Hindus. After building the house in Gobinda Roy’s private land, Shahabad Union’s Assistant land Officer Mohidul Islam Jummadar on Sunday (19 August) broke the house with his people in the afternoon. The destruction of the house and financial losses were destroyed as well as the destruction of the Hindu Goddess’s rest house. Speaking by the condemnation of this incident, the speakers demanded reconstruction of the rest house. On behalf of Shahabad Union Assistant Land Officer Mahidul Islam Jamaddar demanded that the construction of the house on the government land was broken.

ইসরায়েল, বাংলাদেশ ও আসলাম চৌধুরী।

ইসরায়েল, বাংলাদেশ ও আসলাম চৌধুরী। বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আসলাম চৌধুরীর ‘ইসরায়েল-সংশ্লিষ্টতা’ নিয়ে কিছুদিন ধরেই দেশীয় ও আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম সরগরম। এই ইস্যুতে রাজনৈতিক বিতর্ক জমে ওঠাও অবাক হওয়ার মতো বিষয় বলে আমার কাছে মনে হয়নি। মূলত একাডেমিক কারণে আমি ইসরায়েল ইস্যুতে অনেক দিন ধরেই নজর রেখে আসছি। যে কারণে ইসরায়েলে ক্ষমতাসীন লিকুদ পার্টির নেতা মেন্দি এন সাফাদির সঙ্গে আসলাম চৌধুরীর বেশ কিছু ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হয়ে সংবাদমাধ্যমে আসা; এর ফলে বাংলাদেশের বিভিন্ন মহলের প্রতিক্রিয়া এবং শেষ পর্যন্ত আসলাম চৌধুরীর আটক, রিমান্ড ও রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা আমার কাছে বিস্ময়কর মনে হয়নি। কেন বিস্ময়কর মনে হয়নি, তার ব্যাখ্যার আগে ইসরায়েল এবং বাংলাদেশের সঙ্গে এর সম্পর্কের ব্যাপারে স্পষ্ট ধারণা দেওয়া জরুরি। হয়তো অনেকেই জানেন, ইসরায়েল একমাত্র রাষ্ট্র, যার সংবিধান মোতাবেক বিশ্বের যে কোনো প্রান্তের কেউ যদি নিজেকে ইহুদি ধর্মাবলম্বী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে পারে, তাহলে সে দেশের নাগরিকত্ব লাভের অধিকার রাখে। তাকে আগের রাষ্ট্রের নাগরিকত্বও পরিত্যাগ করতে হবে না। যে কারণে ইসরায়েল রাষ্ট্রের সিংহভাগ নাগরিকের একাধিক পাসপোর্ট আছে। ফলে সেই রাষ্ট্রের নাগরিকদের ইসরায়েলবিরোধী অন্য কোনো দেশে চলাচলে বেগ পেতে হয় না। আমার জানা মতে, বাংলাদেশেও এই রাষ্ট্রের নাগরিকদের যাতায়াত রয়েছে নানাভাবে। এ ছাড়া ইসরায়েলে অনেক আরব মুসলমানও বসবাস করেন। বাংলাদেশ রাষ্ট্র এখন পর্যন্ত ইসরায়েলকে স্বীকৃতি দেয়নি- আমাদের পাসপোর্টেই স্পষ্ট লেখা থাকে ‘ইসরায়েল ব্যতীত সব দেশে’ যাওয়া যাবে। ইসরায়েল কিন্তু বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিয়েছে। আরেকটু ঝেড়েকেশে বলা যায়, ইসরায়েলই প্রথম রাষ্ট্র হিসেবে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিয়েছিল। আমাদের সবার জানা, প্রবাসী বাংলাদেশ সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে ছিলেন প্রয়াত খন্দকার মোশতাক আহমদ। তার সাচিবিক দায়িত্বে ছিলেন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুখ্য সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী। ১৭ এপ্রিল গঠিত প্রবাসী সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে খন্দকার মোশতাক আহমদ বিশ্বের সব রাষ্ট্রের কাছে একটি খোলা চিঠি পাঠিয়েছিলেন নবীন রাষ্ট্র ও সরকারের প্রতি স্বীকৃতির আহ্বান জানিয়ে। সেই পত্রের খসড়াও করেছিলেন খুব সম্ভবত কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী। সবার আগে, এপ্রিল মাসের শেষ সপ্তাহে ওই চিঠির সাড়া দিয়েছিল ইসরায়েল। বাংলাদেশ রাষ্ট্র ও এর প্রথম সরকারকে নৈতিক সমর্থন ও আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি প্রদানের বার্তা সংবলিত ঘোষণা দেয় তারা। এমনকি মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে ইসরায়েলের বিভিন্ন বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীরা চাঁদা তুলেছিল এবং ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী রাজ্যগুলোতে অবস্থিত শরণার্থী শিবিরগুলোতে অর্থ ও ত্রাণসামগ্রী পেঁৗছে দিয়েছিল। এর পর ইসরায়েল যখন ইউরোপের একটি রাষ্ট্রের মাধ্যমে আমাদের অস্ত্র সাহায্যের উদ্যোগ নেয়, তখন ভারত উদ্বিগ্ন হয় এবং প্রবাসী সরকারকে পরামর্শ দেয় সে সহায়তা না নিতে। আমাদের প্রবাসী সরকারেরও এই বিবেচনাবোধ ছিল যে, ইসরায়েলের সাহায্য গ্রহণ করলে শত্রুপক্ষ পাকিস্তান বৈরী প্রচারণা চালানোর সুযোগ পাবে। বস্তুত তৎকালীন পাকিস্তানি প্রচারমাধ্যমে তার আগেই বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধকে ‘ইহুদি চক্রান্ত’ হিসেবে প্রচারণা চালানো হচ্ছিল। সেই সময়ের একজন ইসরায়েলি কূটনীতিকের আত্মজৈবনিক গ্রন্থে এ প্রসঙ্গের বিস্তারিত বর্ণনা রয়েছে। মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি, সমর্থন ও সহায়তা প্রদানের ইসরায়েলের আগ্রহ বরাবরই উপেক্ষা করেছে প্রবাসী সরকার। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পরও ‘৭২ সালে ইসরায়েল পুনরায় স্বীকৃতি প্রদান করে। এবারও ব্রিটেনে অবস্থিত বাংলাদেশ মিশন থেকে কূটনৈতিক শিষ্টাচার বজায় রেখেই এ বার্তা প্রদান করা হয় যে, আমরা ইসরায়েলের স্বীকৃতি গ্রহণে আগ্রহী নই। এটা সর্বজনবিদিত যে, ইসরায়েলের পরম মিত্র মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তখন কী ভূমিকা নিয়েছিল। ফলে ইসরায়েলের এ ধরনের আগ্রহের পেছনে আরও নানা ঐতিহাসিক হিসাব-নিকাশ কাজ করেছে। শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশ জাতীয় স্বার্থকে প্রাধান্য দিয়েই ইসরায়েল থেকে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে এসেছে। মনে রাখতে হবে, ইসরায়েলের জন্ম-ইতিহাসের সঙ্গেও যুক্ত রয়েছে উপমহাদেশের ইতিহাস তথা ভারত, পাকিস্তান ও বাংলাদেশের প্রাসঙ্গিকতা। ১৯৪৬ সালে তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ও সৌদি বাদশাহ মিসরের আসওয়ান বাঁধের কাছে এক রিভার ত্রুক্রজে মিলিত হয়েছিলেন। মার্কিন প্রেসিডেন্টের পক্ষে সৌদি বাদশাহকে একটি গোপন বার্তা প্রদানের জন্যই ছিল ওই আয়োজন। সৌদি বাদশাহকে বলা হয়, অচিরেই ভূমধ্যসাগরের পূর্ব তীরে একটি ইহুদি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা হতে যাচ্ছে; এর […]

মাতৃভূমিতে থাকুন আত্মবিশ্বাস নিয়ে… শেথ হাসিনা।

গতকাল ২৮শে আগস্ট ২০১৮ ইং তারিখে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে গণভবনে সাক্ষাৎ করতে যাওয়া সরকারি হিন্দু নেতাদের উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন- মাতৃভূমিতে থাকুন আত্মবিশ্বাস নিয়ে। দুঃখের বিষয় হল হিন্দু নেতাদের অনেকেই ঠিক বুঝতে পারেননি, আপনি মাতৃভূমি না মরুভভুমির কথা বলেছেন। কেননা এইদেশে কিছু উশৃঙ্খল হিন্দু আছে তারা নিজেরা নিজরো বিশৃঙ্খলা সৃস্টি করে ইন্ডিয়া চলে যায় আর বলে এই দেশ নাকি তাদের কাছে মরুভূমির মতো লাগে, এখন বলুন আপনার অপার মহিমার তাদেরকে কে বুঝাবে । প্রধানমন্ত্রী আরও বলেছেনঃ বাংলাদেশের সব ধর্মের মানুষ সমান অধিকার নিয়ে বসবাস করে, তাহলে শুধুমাত্র ইসলাম ধর্মকে কেন রাস্ট্র ধর্ম ঘোষনা করা হইল ? এই বিষয়টা মূর্খ হিন্দুরা ঠিক বুঝে উঠতে পারেনি। আপনি বলেছেন- আর সেই অধিকারটা ভোগের জন্য যা যা করার দরকার, সুযোগ সুবিধা দরকার – সরকার হিসেবে আমাদের দায়িত্ব শান্তিপূর্ণভাবে, সম্মানজনক ভাবে, সকলে যেন যার যার ধর্ম পালন করতে পারেন। কথা সত্য, আপনি খুব শান্তিপূর্ণ ও সম্মানজনক ভাবেই প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহাকে পদচ্যুত ও দেশের বাহিরে পাঠিয়েছেন। আপনি বলেছেন- দেশের সব নাগরিকের অধিকার নিশ্চিত করার জন্য আওয়ামী লীগ ব্যবস্থা নেয় বলেও শেখ হাসিনা উল্লেখ করেন। জী কথা সত্য, হিন্দুদের শ্মশান শুধু হিন্দুরাই ভোগ করবে এটা হতে পারেনা, তাই আপনার দলের জনপ্রতিনিধিরা দেশের বিভিন্ন এলাকায় শ্মশানের জায়গায় নিজেদের মধ্যে ভাগাভাগি করে নিয়েছে। আর মূর্খ হিন্দুরা এটাকে উল্টো ভেবে বসে আছে, এই হিন্দুদের দিয়ে কিচ্ছু হবে না। আপনি বলেছেন- হিন্দু সম্প্রদায়ের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “এই বাংলাদেশে আপনারা হিন্দু সম্প্রদায় নিজেদের অধিকার নিয়েই বসবাস করবেন। আপনাদের কারো কাছে চাইতে হবে কেন?” কথা ঠিক, এত চিল্লাচিল্লি করেও যখন দূর্গা তিন দিনের ছুটি পাওয়া গেল না, সেক্ষেত্রে কোন কিছু না চাওয়াই ভাল আর এটা বোকা হিন্দুরা একবারও চিন্তা করেনি। আপনি বলেছেন- নিজের যোগ্যতায় আপনারা আপনাদের স্থান করে নেবেন। একদম ঠিক কথা বলেছেন, সেই স্থানটা যে ইন্ডিয়াতেই করতে হবে, সেটা হয়ত চতুর হিন্দুরা সহজেই বুঝে গেছে কিন্তু আপনি যদি খোলাখোলি করে বলতেন তাহলে বেকুব হিন্দুরা সহজে বুঝতে পারতো। আপনি আরো অনেক কথাই বলেছেন, সব কথার উত্তর দিলে, আমার সাথে যুক্ত থাকা হিন্দু আওয়ামী লীগের লোকজন বিরক্ত মনে করতে পারেন, তাছাড়া হামলা-টামলাকে আমি আবার খুব ভয় পাই, তাই আজকের মতন এখানেই সমাপ্ত। ………….নিহার রঞ্জন বিশ্বাস

What a trial !

What a trial ! “Lopa Roy” bilded a humble request to all the people of humanity for their co-operation. (26/04/2018) I am “Lopa Roy Biswas” writing this post for you is very inconvenient. My mother worked as a field worker from an NGO (Day-Night Serving Development Foundation) since 2010. The name of the managing director of this NGO is Mujibur Rahman and the name of the chairman is Moniruzzaman. Our house is Kotakhali Bazar in Dakop thana of Khulna district. Recently, the owners of these NGOs became disillusioned with the embezzlement of all the savings. Meanwhile, on Friday, 13 April, some of influential people in our area used to scare away our house, and threatened with pressure to my parents, by forcing them six unwritten non-judicial stamps worth Rs 100 each, 3 of which were my father’s signature and 3 My mother has signed. Apart from this, Rupali Bank signed 7 white checks of the bank and took away the parents’ passport. We also threaten to go and sell the house within 1 month and pay the money. We did not get any support from anyone through trying to get them back. We have filed a lawsuit in the court failing to get back. As a result, with more anger, people attacked our house on April 20 and locked up the house and threatened our tenants so that the rent should be given to local influential leaders. Or do not have to leave the house within 5 days. Without getting any support from anyone at that moment, I call on 999 and tell them that they transfer the call to OC Sir of Dakop Police Station. Then I explain everything to him. Thank you very much to Sir that he sent his people and arranged for us to open the lock. One more thing is that, due to these problems, my father was so ill that he had to be admitted to Khulna Medical College on April 17th. But they circulated that my father is escaped from the area. Then the local people, encouraging others, went to the upazila chairman and UNO sir and tried to prove to them that we had embezzled the money. But sadly nobody is trying to catch the owner of the NGO. They are not doing any complain against them. Overplane groundworkers. If the field workers were involved in it then they too would have run away. And they have been working in this NGO for the last 7-8 years, the NGO owners did not know the money they would leave. Is it possible to give them so much money? And yes, it is also true that for these money is many poor people suffer. But what these employees have to do is that the local influencers are attacking us like that. Our lives are threatening to ruin. Now my father’s job is threatening to leave. My father’s office has been threatened with getting out of office as the local people have complained and gone. We can not find any support from anyone. At this moment I am very helpless in my family. There is no security in our life. There is no security for my dad’s job. By not punishing the real culprit, we do not know who is doing a family like us […]